দক্ষিণ দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর – জেলার ইতিহাস

বর্তমানে শিক্ষকতা বা অন্যান্য চাকরির ইন্টারভিউয়ে নিজ জেলা পরিচিতি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এর মাধ্যমে পরীক্ষার্থীদের সচেতনতাবোধ যেমন বোঝা যায় তেমনি বিষয়ভিত্তিক জ্ঞানের পাশাপাশি অন্যান্য বিষয়ে তার আগ্রহেরও পরিচয় পাওয়া যায়। তাই আমাদের আজকের পোস্টে পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা সম্পর্কিত নানা তথ্য পরিবেশন করা হয়েছে।

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার নামকরণ

দিনাজপুর নামের শাব্দিক অর্থ দিনাজের শহর। আবার কারও মতে, মুসলমান অধিকারের যুগে একজন হিন্দু জমিদার নিঃশব্দে ক্ষমতা সঞ্চয় করে নিজেকে গৌড়ের স্বাধীন রাজা বলে ঘোষণা করেন । এই হিন্দু জমিদারটি ছিলেন দিনাজপুরের প্রভাবশালী ভূস্বামী রাজা গনেশ । তিনি ‘দলুজ মর্দনদেব’ নাম ধারন করেন । ফার্সি পন্ডিতেরা ‘দলুজ’ শব্দটি উচ্চারণ করতেন ‘দিনওয়ার’ রূপে। শব্দটি ভাষাতাত্ত্বিক ধারায় ক্রমে আবর্তিত হয়ে ‘দিনওয়াজ’ অর্থাত্ দনুজ>দন-উ-য>দন-ওয়া-য>দিন-ওয়া-জ রূপে পরিনত হয়। সতেরো শতকে মুসলিম শাসকরা দিনওয়াজ শব্দটি বেছে নেন,যার বাংলা ‘দিনাজ’ । তাঁর সঙ্গে ‘পুর’ যোগাযোগ করে স্থানটির নাম হয় দিনাজপুর ।

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার পরিচিতি

ঐতিহ্যমন্ডিত দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা ১৯৯২ সালের ১ এপ্রিল গঠিত হয় । এই জেলার ৮ টি থানা এবং দুটি মহকুমা । প্রথম টি হল বালুরঘাট সদর মহকুমা আর অপরটি হয়ে গঙ্গারামপুর মহকুমা । বালুরঘাট বালুরঘাট সদর মহকুমা সদর বালুরঘাট এবং গঙ্গারামপুর মহকুমা সদর বুনিয়াদপুর । দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার পূর্বদিকে বাংলাদেশ রাস্ট্র, পশ্চিমে মালদা ও উত্তর দিনাজপুর জেলা, উত্তর দিকে বাংলাদেশ রাস্ট্র ও উত্তর দিনাজপুর জেলা এবং দক্ষিণে বাংলাদেশ রাস্ট্র ও মালদহ জেলা ।

জেলার আয়তন দুই হাজার দুইশো উনিশ (২২১৯) বর্গ কি.মি । লোকসভা কেন্দ্র :- বালুরঘাট । বিধানসভা আসন :- বালুরঘাট, গঙ্গারামপুর, কুমারগঞ্জ, তপন, হরিরামপুর, কুশমন্ডি ।  মোট জনসংখ্যা :- ১৬,৭০,৯৩১ (২০১১)। সাক্ষরতার হার  ৭৩.৮৬ শতাংশ । হিন্দু, মুসলমান, জৈন, খ্রিস্টান, আদিবাসী, ও অন্যান্য উপজাতি শ্রেণির বাস এই জেলাতে ।

প্রধান নদী
দক্ষিন দিনাজপুর জেলার প্রধান নদী- (১) আত্রাই, (২) পুর্নভবা, (৩) টাঙ্গন নদী। এই এই নদী গুলি জেলার মাটিকে সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা করে তুলেছে।

ঐতিহাসিক স্থান

এই জেলাতেই ঐতিহাসিক দিক দিয়ে বিখ্যাত অনেকগুলি বড়ো বড়ো দিঘি রয়েছে । এগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য মহীপাল দিঘি, তপন দিঘি,কালদিঘি, ধলদিঘি, ধন্যবাদ সাহারদিঘি, প্রাণসাগর দিঘি, ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য । প্রত্নতাত্ত্বিক দ্রষ্টব্য স্থান গুলির মধ্যে রয়েছে বাণগড়, দেবকোটে আতাসার দরগা, সর্বমঙ্গলার পাথরের দূর্গামূর্তি,কুমারগঞ্জ থানার বটুনে রয়েছে ‘সন্ধ্যাকর নন্দীর জন্মভিটা’,গঙ্গারামপুরে পঞ্চরথের মন্দির, পিরপাল গ্রামে বখতিয়ার খলজির সমাধি, রয়েছে বিখ্যাত পৌরাণিক শমীবৃক্ষ । রয়েছে বিখ্যাত বোল্লা কালী মন্দির, আত্রাই নদীর পূর্ব পাড়ে পতিরামে সুপ্রাচীন বিদ্যেশ্মরী মাতৃস্থান, যা পূর্বে বিরাট দেশ নামে পরিচিত ছিল । এই জেলায় রয়েছে বিখ্যাত দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা মিউজিয়াম । রয়েছে গঙ্গারামপুর থানার জাহাঙ্গীরপুর অঞ্চলের বিখ্যাত শ্রী শ্রী বিদ্যেশ্মরী কালী মন্দির । পতিরাম ও শিববাড়িতে রয়েছে ঐতিহ্যবাহী শিবের ধাম। হরিরামপুরে অবস্থিত পৌরাণিক শমীবৃক্ষ।

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বিখ্যাত দ্রব্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে গঙ্গারামপুরের তাঁতের শাড়ি, নৌশিল্প , নয়াবাজারের দই, কুশমন্ডি থানা অঞ্চলের মোখাশিল্প, তপন থানা অঞ্চলের শোলা শিল্প, কুমারগঞ্জ ও হিলি থানা অঞ্চলের বিখ্যাত বাঁশ ও বেত শিল্প ইত্যাদি । দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বালুরঘাটের নাটক পশ্চিমবঙ্গবাসীর কাছে গরিমাদীপ্ত। জেলার লোকসংস্কৃতির অঞ্চলে মনসার গান, গোরক্ষ নাথের গান, কানি বিষহরির গান, যুগি, খন গান, কাইঠা নৃত্য ইত্যাদি বিখ্যাত লোকগান । লোকনাট্য মোখানাচ এই জেলার অপর অনন্য যশোগাথা । লোক দেবতাদের মধ্যে রয়েছে ভেদাইঠাকুর, ঢেলপির বা ল্যাংড়াপির, নরবড়িয়া শিব, বুড়োপির ইত্যাদি । জেলায় আদিবাসী সমাজের অন্যতম লোক দেবতা হলেন বোঙ্গাবুঙ্গি।

মহাবিদ্যালয়

বালুরঘাট মহাবিদ্যালয়, বালুরঘাট মহিলা মহাবিদ্যালয়, গঙ্গারামপুর মহাবিদ্যালয়, হরিরামপুর মহাবিদ্যালয়, বুনিয়াদপুর মহাবিদ্যালয়, যামিনী মজুমদার মহাবিদ্যালয় (পতিরাম), গভর্নমেন্ট ডিগ্রি কলেজ (কুশমন্ডি), এস বি এস গভর্নমেন্ট কলেজ (হিলি), নাথিয়াল মুর্মু মেমোরিয়াল কলেজ (তপন) ।

সাহিত্যিক ও অন্যান্য ব্যক্তিত্ব

মুকুল বসু, দীপঙ্কর ব্যানার্জী, অজিতেশ ভট্টাচার্য, মৃণাল চক্রবর্তী, রতন দাস, নির্মলেন্দু তালুকদার, বাণী প্রসাদ চট্টোপাধ্যায়, কিশলয় রায়, মানবের চৌধুরী, বিশ্বরূপ দে সরকার, সুভাষ সমাজদার, সুনীল খাঁ প্রমুখ।

নাট্য ব্যক্তিত্ব
মন্থথ রায়, শিবপ্রসাদ কর, নরেশ বন্দ্যোপাধ্যায়, ভবেশ বন্দ্যোপাধ্যায়, নির্মলেন্দু তালুকদার, নারু মিত্র, গিরিশ সাহা, প্রণব চক্রবর্তী, শান্তি রঞ্জন গুহ, সত্যরঞ্জন তালুকদার, সুনীল খাঁ, রেবা ব্যানার্জী, পুষ্প সমাজদার প্রমুখ ।

লোকনাট্য শিল্পী
ফকদল গোঁসাই, হরলাল রায়, মাধাই মহন্ত, নিতাই সরকার, সীতারাম দেব শর্মা, সীতেশ সরকার, নয়ানু সরকার, কাউ সরকার প্রমুখ ।

স্বাধীনতা সংগ্রামী
মহারাজ বসু, পুলিন দাশগুপ্ত, ভবেশ ব্যানার্জী, ধীরেন্দ্র কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়, স্বর্ণকমল মিত্র, অবিনাশ বসু, সরোজ রঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়, বেলারানী চ্যাটার্জী, কুমুদ কামিনী দেবী, অমিয় বালা রায়, সুমতি হালদার, ইন্দুমতী দেবী প্রমুখ ।

তথ্য সূত্র :- দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ঐতিহ্য ও স্বরূপ সন্ধান, গ্রন্থতীর্থ পাবলিশার্স
তথ্য দান – চৈতন্য দাস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *